খেতাব বাতিল করে ইতিহাস থেকে প্রেসিডেন্ট জিয়ার নাম মুছে ফেলা যাবেনা – ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান

জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি – জাগপা সভাপতি ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান বলেছেন, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান খেতাবের জন্য মুক্তিযুদ্ধ করে নাই। একজন সাচ্চা ঈমানদার ও দেশপ্রেমী মানুষ হিসেবে যুদ্ধ করেছিলেন। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পাকিস্তান সামরিক বাহিনী বাঙালি জনগণের উপর আক্রমণ করার পর তিনি তার পাকিস্তানি অধিনায়ককে বন্দি করে বিদ্রোহ করেন এবং সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। যখন মুক্তিকামী বাংলার মানুষ বুঝে উঠতে পারছিলনা কি করতে হবে, ঠিক সেই সময় ১৯৭১ সালের ২৭শে মার্চ তিনি চট্টগ্রামের কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা করেন। জিয়াউর রহমানের সেই ঐতিহাসিক ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতেই বাংলার মানুষ জেগে উঠে। তিনি মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সেক্টর কমান্ডার ও জেড ফোর্সের অধিনায়ক ছিলেন। ‘বীর উত্তম’ খেতাব বাতিল করে বাংলাদেশের ইতিহাস থেকে জিয়াউর রহমানের নাম মুছে ফেলা যাবেনা।

আজ (১০ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল জামুকা কর্তৃক জিয়াউর রহমানের ‘বীর উত্তম’ খেতাব বাতিলের তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় জাগপা সভাপতি বলেন, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানকে নিয়ে ষড়যন্ত্র নতুন কিছু নয়। যুগে যুগে প্রেসিডেন্ট জিয়াকে নিয়ে ষড়যন্ত্র হয়েছে, এমনকি ষড়যন্ত্র করেই তাকে হত্যা করা হয়েছিল। কোন ষড়যন্ত্রই দেশের মানুষের মন থেকে প্রেসিডেন্ট জিয়াকে মুছে দিতে পারে নাই, এই ষড়যন্ত্রও পারবেনা। আমি জামুকা’র সিদ্ধান্তের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

আমি স্পষ্ট ভাষায় জামুকা’কে বলতে চাই, ক্ষমতাশালীদের খুশি করার জন্য-তোশামোদ করার জন্য নিজের বিবেককে বিক্রয় করবেননা। দেশের ঐতিহাসিক নেতৃত্বকে অস্বীকার করবেননা। মনে রাখবেন ক্ষমতাশালীদের ক্ষমতা চিরস্থায়ী নয়। ইতিহাস আপনাদের ক্ষমা করবেনা।